বাংলা হাসির জোকস ও বাংলা হাসির কৌতুক Sms - Only4SMS.Com

বাংলা হাসির জোকস ও বাংলা হাসির কৌতুক Sms

হ্যালো বন্ধুরা, সবাই কেমন আছো? আজকে তোমাদের মাঝে নিয়ে আসলাম কিছু হাসির এসএমএস, এখন থেকে তোমরা শুধুই হাসবে এবং হাসবে। এসএমএস গুলু পড় আর হাসতে থাকো। ভালো থেকো বন্ধুরা।



বাংলা হাসির কৌতুক Sms:

এক গৃহকর্মী তার মালিক গৃহকত্রীর কাছে বায়না ধরেছেতার বেতন বাড়াতে হবে।
গৃহকত্রীঃ তোমার বেতন বাড়ানো হয়েছে ছয় মাসও হয় নি। এখনি আবার বেতন বাড়ানোর আবদার কেন?
গৃহকর্মীঃ এই সময়ের মধ্যে আমি তিনটি সার্টিফিকেট পেয়েছি…। তাই বেতন বাড়ানোর জন্য আবেদন করেছি।
গৃহকত্রীঃ কি কি সার্টিফিকেট?
… গৃহকর্মীঃ আমি আপনার চেয়ে ভাল কাপড় আয়রন করতে পারি।
গৃহকত্রীঃ কে দিয়েছে এই সার্টিফিকেট?
গৃহকর্মীঃ জ্বী, স্যার মানে… আপনার স্বামী……
গৃহকত্রীঃ হুম, আরকি সার্টিফিকেট পেয়েছো……
গৃহকর্মীঃ আমি আপনার চেয়ে ভাল রান্না করতে পারি…
গৃহকত্রীঃ কে বলেছে তুমি আমার চেয়ে ভাল রান্না কর? (বেশ রাগত স্বরে…)
গৃহকর্মীঃ জ্বী, আপনার স্বামী বলেছেন…
গৃহকত্রীঃ আচ্ছা ঠিক আছে, হতে পারে তুমি আমার চেয়ে ভাল রান্না কর……আমি কি চাকরানী নাকি যে ভাল রান্না জানতেহবে? বলো আরেকটি কি সার্টিফিকেট পেয়েছ?
গৃহকর্মীঃ আমি আপনার চেয়ে বিছানায় ভাল পারফর্ম করতে পারি।
কত্রী তো এবার রেগে আগুন। আমার স্বামী বলেছে এই কথা?? ওর সাথে তোমার তাহলে এইসবও হয়??
গৃহকর্মীঃ জ্বী না, আপনার স্বামী বলেনি……বলেছে আপনার গাড়ির ড্রাইভার!
গৃহকত্রীঃ (কত্রীএবার চুপ…) ঠিক আছে তোমার বেতন বাড়ায়ে দেয়া হবে…এসব নিয়ে কথা বলার দরকার নাই।

ছেলেঃ " আমরা ৩৬ ভাইবোন..."
মেয়েঃ " তোমার ঘরে কি Family Planning(পরিবার পরিকল্পনা) এর লোক আসে নি???"
.
.
.
.
.
.
.
ছেলেঃ " এসেছিলো... কিন্তু স্কুল ভেবে চলে গেছে... :P

ছেলে ও বাবার কথোপকথন . . .
ছেলেঃ বাবা কনডম কি?
বাবাঃ জানি না!! :@
ছেলেঃ বুঝতে পেরেছি, তুমি কনডম চেননা বলেই আমরা ৮ ভাই বোন!!

ভয়ানক সত্য
.
.
.
.
.
.
.
.
''একজন 'মা' ১০ জন সন্তানের দেখাশুনা করতে পারে
কিন্তু
কখনো কখনো ১০ জন সন্তান মাত্র ১ জন 'মা'-এর দেখাশুনা করতে পারেনা।..!!''

রাতের বেলা চান্দু ঘুমাতে গেলো!!
মশার কামড়ে অতিষ্ঠ হয়ে সে মশারি টানালো!!
কিন্তু ভুলক্রমে একখানা জোনাকি পোকা মশারির ভিতর ঢুকে পড়ল!! বাতি নিভানোর পরে চান্দু যখন জোনাকিটা দেখিল তখন হাহাকার করে উঠে বললঃ.....হায় হায়!! মশা তো আমারে টর্চলাইট জ্বালাইয়া খুজতেসে!! আমি এখন কই যাই??

তিনজন বৈজ্ঞানিক প্লেনে চড়ে কোথাও যাচ্ছিলেন । এরা হলেন বৃটেন , রাশিয়া ও বাংলাদেশের অধিকারী । তিনজনই নিজ দেশের আবিস্কারের উপর কথায় প্রতিযোগিতা শুরু করলেন ।
বৃটেন- আমার দেশে এমন একটা জাহাজ আবিস্কৃত হয়েছে যা কি না পানির উপর দিয়ে চলে ।
অন্য দুই জন বললেন - তা নাকি?
রাশিয়া - আমাদের বৈজ্ঞানিকরা এমন একটা প্লেন আবিস্কার করেছেন যা কিনা আকাশের নীল অংশের উপর দিয়ে চলে ।
অন্যদুই জন - কি করে ?
রাশিয়া- উপর দিয়েই যায় তবে নীল অংশের দুই আঙ্গুল নীচ দিয়ে ।
বাংলাদেশ - তা আর এমন কি আমাদের দেশ তো নাক দিয়ে ভাত খাওয়া পদ্ধতি আবিস্কার করেছে ।
অন্য দুজন - এতো সাংঘাতিক আবিস্কার ।
বাংলাদেশ - হ্যাঁ তবে নাকের দুই আঙ্গুল নীচ দিয়ে ।

এক গ্রামে রহিম মিয়া নামে এক বয়োবৃদ্ধ লোক ছিল যার বয়স ছিল একশ দশ ।এটা নিয়ে তার গর্বের অন্ত ছিলো না ।যাকেই দেখত তাকেই জিজ্ঞেস করতঃ তোমার বয়স কত? কারো বয়সই তার চেয়ে বেশি হয় না ।যাহা তাহাকে আরো গরবান্বিত করিত।তো একদিন সে হেঁটে যেতে যেতে দেখল এক গাছের নিচে এক বৃদ্ধ লোক বসে বসে কান্না করছে ।অভ্যাস অনুযায়ী রহিম মিয়া তার কাছে গেল বয়স জিজ্ঞাসা করতে ।কিন্তু বুঝতেপারছিলনা আগে কি বয়স জানতে চাইবে,নাকিকান্না করার কারন ।অবশেষে বলেই ফেললঃআপনার বয়স কত? সেই বৃদ্ধটি কান্না থামিয়ে বললোঃ য়্যাকশ বারো !!! শুনে তো রহিম মিয়ার মেজাজটাই খারাপ হয়ে গেলো,ধূর:-/ তাও জিজ্ঞেস করলোঃ তা এই বয়সে গাছতলায় বসে হাউমাউ করেন ক্যা ?
লোকটি কান্না জড়ানো কন্ঠে বললোঃ আব্বু মারছে !!!
রহিম মিয়া মাছের মতো খাবি খেতে খেতে জিজ্ঞেস করলোঃ কেন?
লোকটি বললোঃ দাদার সাথে বেয়াদবি করছি তাই !!!!!

মধ্যেরাতে মই ও হ্যারিকানের হাতে গ্রামের পথে একজন চৌকিদার এত রাত্রে এভাবে কোথায় যাচ্ছেন?
পথিকঃ জীবনের গেন্না ধরে গেছে তাই গলায় দড়ি দিয়ে মরতে যাচ্ছি।
চৌকিদারঃ সে কি ? তবে হ্যারিকেন কেন?
পথিকঃ বাব্বা যা সাপের উপদ্রব চৌকিদারঃ আর মইটা?
পথিকঃ গাছে উঠে দড়ি খাটানোর জন্য গাছে যে একদম চড়তে পারিনা মশাই । শেষে গিয়ে পড়ে গিয়ে পা ভাংবো।

চল্লিশ বছর বয়সের এক জুটি সংসদ ভবনের সামনে বসে, হাতে হাত রেখে গল্প করছিল।
এক পুলিশ ব্যাপারটা দেখে কৌতূহলী হল।
পুলিশঃ আমি আপনাদের নিষেধ করছি না; শুধু জানতে ইচ্ছা হল, আপনারা কারা?
পুরুষটিঃ আমরা স্বামী-স্ত্রী।
পুলিশঃ (কিছুটা রেগে) স্বামী-স্ত্রীতো এখানে কেন? বাসায়ইতো…
পুরুষঃ না মানে, আমি একজনের স্বামী আর ও অন্যজনের স্ত্রী। :p

চান্দু গেছে এক কোল্ড ড্রিঙ্কস এর দোকানে সেখানে গিয়ে বলছে
“একটা পেপসি এর বোতল খুলো ভাই!!
দোকানদার খুলল
..
আবার বলল “একটা 7-Up ও খোল”
দোকানদার খুলল
আবার বলল “ একটা স্প্রাইট এর বোতল খুলো”
দোকানদার খুলল
আবার বলল “ একটা মাউন্টেন ডিউ এর বোতল খুলো”
দোকানদার এখন রাগ হয়ে গেলো আর বলল “ আরে তুই খাবি কোনটা?? “
চান্দুঃভাইজান খামুনা!! আমার এই বোতলের ঢাকনা খুলার ঠুস ঠুস আওয়াজ শুনতে খুব মজা লাগে :P :P

একটা প্রশ্নঃ
একটা মেয়ে যখন ৩/৪ টা ছেলের সাথে বিছানায় শোয় তখন সবাই তাকে পতিতা বলে, কিন্তু__
একটা ছেলে যখন ৭/৮ টা মেয়ের সাথে শোয় তখন সবাই তাকে আসল পুরুষ বলে, কিন্তু কেনো?
উত্তর টা একটু নিচে আমিই দিয়া দিলাম...। :P :P :P










উত্তরঃ
ব্যাপারটা আসলে এরকম , যখন একটা তালা ৩/৪ টা চাবি দিয়ে খুলে তখন সেটা খারাপ তালা(পতিতা),
আর যখন একটা চাবি দিয়ে ৭/৮ টা তালা খুলে তখন সেটা "মাস্টার কী "Master Key" (পুরুষ) :P :P :P

~~~বাঙ্গালির মাথায় এত্তো বুদ্ধি কেমনে যে ঢুকলো ? চান্দের বুড়িরে সুতা কাটা বাদ দিয়া হাতে কম্পিউটার ধরাইয়া দিছে ।ফেসবুকে একাউণ্ট ও খুইলা দিছে। আর উনি এখন ফেইসবুকে এতো ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট দেইখা তো টাসকি খাইবার জোগার ।~~~

কোন ছেলের মাঝে কি এত গুণ আছে ??? পারবেন নাকি এমন হতে যেমন মেয়েরা চায়।
পুরুষের নারীর প্রতি আকর্ষণ থাকবে, নারীরও পুরুষের প্রতি আকর্ষণ থাকবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু নারীরা বরারারই নিজেদের চাহিদাকে রহস্যময় করে রাখতে পছন্দ করে। তাহলে একজন নারীর কাছে একজন পুরুষ কিভাবে নিজেকে আকর্ষণীয় ভাবে মেলে ধরবে? হ্যাঁ, আপনাকে নারীর মনোজগত সম্পর্কে হালকা ধারনা রাখতে হবে। অর্থাৎ নারীর ভালোলাগা, মন্দ লাগা নিয়ে আপনাকে সচেতন থাকতে হবে। তাহলে আসুন জেনে নিই নারীকে আকর্ষণের ১০ উপায়।
এক. সবসময় পরিচ্ছন্ন থাকার চেষ্টা করুন,পরিপাটি থাকুন। যেই পোষাকই পড়ুন না কেন তা যেন সুন্দর এবং আপনার সাথে মানান সই হয়।
দুই. নিজের আত্মবিশ্বাস প্রমানের জন্য সব সময় নারীর চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলুন। নারীরা আত্মবিশ্বাসী ছেলেদের পছন্দ করে। ভুলেও দেহের দিকে তাকাবেন না। এতে আপনার প্রতি তার বাজে ধারনা হতে পারে।
তিই. প্রশংশা করুন। যেমন, ‘নীল শাড়ীতে তোমাকে শমরেশের মাধবীলতার মত লাগে’।
চার. তার মতামতের গুরুত্ব দিন। সে কথা বলার সময় তাকে সময় দিন,চুপ করে শুনুন। সর্বোপরি একজন ভালো শ্রোতা হোন। একজন ভালো শ্রোতাকে শুধু নারীরা নয় সবাই পছন্দ করে।
পাঁচ. তার ভালো দিকগুলো তুলে ধরুন। যেমন তোমাকে হাসিখুশি মনে হয়। তোমার সব কাজই ভাল হয়। তুমি অনেক পজিটিভ ইত্যাদি। তার কোন একটা দিক ভালো না লাগলে ভদ্রভাবে তাকে বুঝান। তাকে বলুন এটুকু ঠিক করে নিলে সেই পৃথিবীর সেরা।
ছয়. তার ভালোলাগা, মন্দলাগা, প্রিয়, অপ্রিয় সব জেনে নিন। আপনার পছন্দের সাথে মিলে যায় এমন বিষয়গুলোকে বারবার আলোচনায় টেনে আনুন। মাঝে মাঝে তার পছন্দের কিছু করে তাকে সারপ্রাইস দিতে পারেন। নারীরা সারপ্রাইস পেতে পছন্দ করে।
সাত. মনে রাখবেন, মেয়েরা সামাজিক ও মিশুকদের প্রতি আকৃষ্ট হয়। তার বন্ধুদের মূল্যায়ন করুন। তার সামনে তার বন্ধুদের নিয়ে বাজে মন্তব্য করবেন না। এতে আপনার প্রতি তার বিরূপ ধারনা হতে পারে। তার আত্মীর,বন্ধু বান্ধবদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করুন।
আট. তার প্রতি যত্নশীল হোন। কোথাও প্রবেশের সময় আগে গিয়ে দরজা খুলে তাকে স্বাগতম জানান। এ বিষয়টি নারীদের ভীষণ প্রিয়।
নয়. আপনার কাছে তার গুরুত্ব বোঝান। একসঙ্গে থাকাবস্থায় ফোন পরিহার করার চেষ্টা করুন। ফোনে কথা বলার সময় বোঝাতে চেষ্টা করুন আপনি তার প্রতি মনোযোগী। তার প্রতি আপনার পূর্ণ আকর্ষণ রয়েছে।
দশ. তাকে সহায়তা করুন। মেয়েরা সব সময় সহযোগীদের প্রতি আকৃষ্ট হয়। যেমন কোট পরিধানে হাত বাড়িয়ে দিন। নারীর সেবায় উদার হোন।


বাংলা হাসির মজার কৌতক এসএমএস:
আমি বোকা, আমি ছাগল,
আমি গরু, আমি পাগল,
আমি জানোয়ার, আমি রাক্ষস,
আমি স্টুপিড, ( আস্তে পড়ো, তোমার এত্ত গুলো নাম সবাই জেনে ফেলবে )

১ম বন্ধুঃ কিরে দোস্ত তোর মন খারাফ কেনো ?
২য় বন্ধুঃ আর বলিশ না, একটা বই কেনার জন্য বাবার কাছে টাকা চেয়ে ছিলাম ।
১ম বন্ধুঃ টাকা দেয় নাই ?
২য় বন্ধুঃ নাহ ! বইটা উনি নিজেই কিনে আনছে !!!

১ম বন্ধুঃ বল তো কুকুর রা বিয়ে করে না কেনো ?
২য় বন্ধুঃ একটা মালিক তো আছেই, আরেক টা দিয়ে কি করবে ?

বিয়ের আগে, বল্টুর প্রেমিকা তাকে বলছে-
ডার্লিং চাঁদ কোথায় ?
বল্টুঃ একটা আকাশে আরেক টা আমার পাশেই
বসে আছে ।
বিয়ের পর:-
বউঃ এই শুন না, চাঁদ কোথায় ?
বল্টুঃ ওই তুই কানা নাকি ???? আকাশে কি তোর বাপ
“ফিলিপস” বাত্তি জালাইয়া রাখছে ????

বল্টু : রাতে বিছানায়
শুয়ে সিগারেট
খাচ্ছে
হঠাৎ বল্টুর
মা : পাশের রুম থেকে
বলল বল্টু ধোঁয়া
দেখা যায়
কোথাও আগুন
লাগেনিতো?,
.
বল্টু: না কয়েল
জ্বালাচ্ছি মা ”
.
মা: কয়েলের গন্ধ
এরকম কেন ?
.
বল্টু: মা এটা নতুন
কয়েল তাই এ রকম
গন্ধ ।
.
মা : বুঝতে পারল এবং
বলল বাবা বল্টু
এ রকম
কয়েল জ্বালাস না
.
বল্টু: কারণটা কি মা
.
মা: বলল
.
.
.
.
.
.
মশার ক্যান্সার হতে
পারে….

প্রথম বন্ধুঃ জানিস, আমাদের বাসার সবাই বাথরুমে গান
গায়।
দ্বিতীয় বন্ধুঃ সবাই ?
প্রথম বন্ধুঃ সবাই, চাকর-বাকর পর্যন্ত।
দ্বিতীয় বন্ধুঃ তোরা তাহলে সবাই খুব গানের
ভক্ত!
প্রথম বন্ধুঃ দূর, তা নয়। আসলে আমাদের
বাথরুমের ছিটকিনিটা নষ্ট তো, তাই!

পিংকি : আমাকে বল্টুর সাথে বিয়ে না দিলে আমি বাড়ি থেকে পালিয়ে যাব. পিংকির মা কেঁদে কেঁদে বলল, আমি তোর … বাবার সাথে পালিয়েছিলাম. তোর বড় বোন পালিয়ে গেছে ডিম ওয়ালার সাথে !! তোর ভাই গেছে কাজের মেয়ের সাথে !! তোর … চাচা পালিয়ে বিয়ে করেছে মুচির মেয়েকে !! তোর ফুফা পালিয়েছে দুধওয়ালির সাথে!! তোর ফুপি ভেগেছে মালির সাথে!!তোর চাচাত বোন রিংকি ভাগ-ল কাশেমের সাথে!! তোর বাবা ২ বার পালিয়ে গিয়েছিল পাশের বাসার করিমের বউয়ের সাথে !! এখন তুই ও পালিয়ে গেলে আমাদের মান সম্মান তো কিচ্ছু থাকবে না..

তোমার অসুখ হোক, তোমার ঘরে মোসা আসুক,
তোমার মাথা খারাফ হোক, তোমার স্বপ্নে ভুত আসুক,
সারা রাট শীত লাগুক, —- তা আমি চাইনা,,,
কারণ তুমি আমার ফ্রেন্ড !!!!

তুলতুলে গাল তোমার নরম দুটি ঠোট,
সুন্দর ওই নাকের উপর দারুন দুটি চোখ,
রেশমি কালো লম্বা চুল, মিস্টি তোমার হাসি,
দাঁত নেই দেখে বুঝলাম বয়স তোমার ৮০ !!


Search here: Fanny bangla fanny sms,বাংলা কৌতুক, মজার সকল জুকস এসএমএস,বাংলা কৌতুক sms,মজার মজার কৌতুক,মানুষকে হাসানোর কৌতুক,কৌতুক, মানুষের মন ভালো করার বাংলা কৌতুক, অনেক হাসির sms, হাসির sms চাই, হাসি sms, মজার sms, ভালোবাসার হাসির sms, বোকা বানানোর sms, মজার হাসির sms, হাসির কৌতুক গল্প Golpo.
Disclaimer: All SMS messeges posted here are from our Visitors sent by E-mail/ Text on our Mailbox, Cell Phones. We do not express any Ownership of these messages. In case if any of these messages violated your copyright, please click here to send us an e-mail. We will respond this at earliest.